অনন‍্য-বাংলা : একটি ব‍্যাকরণের ব্লগ

Thursday, October 11, 2018

ব‍্যঞ্জন সন্ধি : ব‍্যঞ্জন সন্ধির উদাহরণ সূত্র ও ব‍্যতিক্রম

ব‍্যঞ্জন‌সন্ধির সংজ্ঞা, ধারণা ও সূত্র


ব‍্যঞ্জনসন্ধি কাকে বলে?

স্বরে ব‍্যঞ্জনে, ব‍্যঞ্জনে স্বরে ও ব‍্যঞ্জনে ব‍্যঞ্জনে যে সন্ধি হয় তাকে ব‍্যঞ্জন‌সন্ধি বলে।

ব‍্যঞ্জন সন্ধির সূত্র‌গুলি আলোচনা করার সময় আমরা দেখতে পাবো, সন্ধির সময় আসলে ধ্বনিপরিবর্তন ঘটে। 



সূত্র ১: স্বর + ছ্ = ছ্>চ্ছ্


স্বরধ্বনির সাথে ছ্ যুক্ত হলে ছ্ থেকে চ্ছ্ হয় অর্থাৎ, একটি চ্-এর আগম ঘটে।

যেমন: 
তরু+ছায়া = তরুচ্ছায়া(উ+ছ্)
পরি+ছেদ = পরিচ্ছেদ(ই+ছ্)
উপ+ছায়া = উপচ্ছায়া(অ+ছ্)
পূর্ণ+ছেদ = পূর্ণচ্ছেদ
নদী+ছবি = নদীচ্ছবি
প্র+ছায়া = প্রচ্ছায়া
আ+ছাদন = আচ্ছাদন
মতি+ছন্ন = মতিচ্ছন্ন
মুখ+ছবি = মুখচ্ছবি
রবি+ছবি = রবিচ্ছবি
আলোক+ছটা = আলোকচ্ছটা



সূত্র ২: ত্/দ্ + চ্/ছ্ = ত্/দ্ > চ্


ত্ বা দ্-এর সাথে চ্ বা ছ্ যুক্ত হলে ত্ বা দ্ চ্-এ রূপান্তরিত হয়। এখানে আসলে সমীভবন হয়।

যেমন: 
উৎ+চারণ = উচ্চারণ
বিপদ্+চিন্তা = বিপচ্চিন্তা
উৎ+ছেদ = উচ্ছেদ


সূত্র ৩: ত্/দ্ + জ্/ঝ্ = ত্/দ্ > জ্


ত্ বা দ্-এর সাথে জ্ বা ঝ্ যুক্ত হলে ত্ বা দ্ পরিবর্তিত হয়ে জ্ হয়। এটিও সমীভবন।

যেমন:
বিপদ্+জাল = বিপজ্জাল
বিপদ্+জনক = বিপজ্জনক
মহৎ+ঝঞ্ঝা = মহজ্‌ঝঞ্ঝা
তৎ+জন‍্য = তজ্জন্য
কুৎ+ঝটিকা = কুজ্‌ঝটিকা


সূত্র ৪: ত্/দ্ + শ্ = ত্/দ্ > চ্  এবং শ্>ছ


ত্ বা দ্-এর সাথে শ্ যুক্ত হলে ত্/দ্ স্থানে চ্ এবং  শ্ স্থানে ছ্ হয়। এটিও একধরনের সমীভবন।

যেমন:
উৎ+শ্বাস = উচ্ছ্বাস
উৎ+শ্বসিত = উচ্ছ্বসিত
মৃৎ+শকটিকা = মৃচ্ছকটিকা


সূত্র ৫: ত্/দ্ + হ্ = ত্/দ্ > দ্  এবং হ্>ধ্


ত্ বা দ্-এর সাথে হ্ যুক্ত হলে ত্ বা দ্ স্থানে দ্ হয় এবং হ্ স্থানে ধ্ হয়।

যেমন
উৎ+হার = উদ্ধার
তদ্+হিত = তদ্ধিত


সূত্র ৬: চ-বর্গ + ন্ = ন্>ঞ্


যেমন:
যাচ্+না = যাচ্ঞা
রাজ্+নী = রাজ্ঞী
যজ্+ন = যজ্ঞ


সূত্র ৭: ত্/দ্ + ট্/ঠ্ = ত্/দ্ > ট্


ত্ বা দ্-এর সাথে ট্ বা ঠ্ যুক্ত হলে ত্ বা দ্ বদলে গিয়ে ট্ হয়।

যেমন:
তদ্+টীকা = তট্টীকা


সূত্র ৮: ত্/দ্ + ড্/ঢ্ = ত্/দ্ > ড্


যেমন:
উৎ+ডীন = উড্ডীন


সূত্র ৯: ষ্ + ত্/থ্ = ত্>ট্ এবং থ্>ঠ্


ষ্-এর সাথে ত্ বা থ্ যুক্ত হলে ত্ থেকে হয় ট্ এবং থ্ থেকে হয় ঠ্।

যেমন:
বৃষ্+তি = বৃষ্টি
ষষ্+থ্ = ষষ্ঠ


সূত্র ১০: ত্/দ্ + ল্ = ত্/দ্ > ল্


ত্ বা দ্-এর সাথে ল্ যুক্ত হলে ত্ বা দ্ পরিবর্তিত হয়ে ল্ হয়। 

যেমন:
উৎ+লেখ = উল্লেখ
উৎ+লিখিত = উল্লিখিত
বৃহৎ+ললাট = বৃহল্ললাট


সূত্র ১১: ন্ + শ্/স্/হ্ = ন্>অনুস্বার(ং)


ন্-এর সাথে শ্,স্ বা হ্ যুক্ত হলে ন্ স্থানে অনুস্বার হয়।

যেমন:
দন্+শন = দংশন
জিঘান্+সা = জিঘাংসা
মীমান্+সা = মীমাংসা
বৃণ্+হতি = বৃংহতি


সূত্র ১২: ম্+ত্ = ম্>ন্


ম্-এর সাথে ত্ যুক্ত হলে ম্-স্থানে ন্ হয়। 

যেমন:
গম্+তব‍্য = গন্তব‍্য
নিয়ম্+তা = নিয়ন্তা
শাম্+ত = শান্ত


সূত্র ১৩: ম্+স্পর্শ‌ধ্বনি = ম্> অনুস্বার অথবা বর্গের শেষ ধ্বনি


ম্-এর সাথে যে কোনো স্পর্শধ্বনি যুক্ত হলে ম্-স্থানে অনুস্বার অথবা ঐ স্পর্শব‍্যঞ্জনের বর্গের শেষ ধ্বনি হয়।

যেমন:
কিম্+কর্তব‍্য = কিংকর্তব‍্য
কিম্+কর = কিংকর
শম্+কর = শংকর



সূত্র ১৪: উৎ + স্থা/স্তম্ভ্ = স লোপ


উৎ উপসর্গের সাথে স্থা বা স্তম্ভ ধাতু-জাত শব্দ যুক্ত হলে স্ লোপ পায়।

যেমন: 
উৎ+স্থান = উত্থান
উৎ+স্তম্ভ = উত্তম্ভ
উৎ+স্থাপন = উত্থাপন


সূত্র ১৫: ক্,চ্,ট্,প্ + স্বর/ঘোষ ব‍্যঞ্জন/য্,র্,ল্,ব্,হ্ = ক্,চ্,ট্,প্ > বর্গের তৃতীয় ব‍্যঞ্জন


ক্,চ্,ট্ বা প্-এর সাথে স্বরধ্বনি অথবা ঘোষধ্বনি অথবা য্,র্,ল্,ব্,হ্ যুক্ত হলে ক্,চ্,ট্,প্ স্থানে নিজ নিজ বর্গের তৃতীয় ব্যঞ্জন হয়।

যেমন:
ণিচ্+অন্ত = ণিজন্ত
বাক্+আড়ম্বর = বাগাড়ম্বর
দিক্+গজ = দিগ্‌গজ 
সুপ্+অন্ত = সুবন্ত
প্রাক্+জ‍্যোতিষ = প্রাগ্‌জ‍্যোতিষ
বাক্+দত্তা = বাগ্‌দত্তা


সূত্র ১৬: ত্ + স্বর/গ্, ঘ্, দ্, ধ্, ব্, ভ্/য্, র্,ব = ত্>দ্


ত্-এর সাথে স্বরধ্বনি, গ্,ঘ্,দ্,ধ্,ব্,ভ্ অথবা য্,র্,ব্ যুক্ত হলে ত্-স্থানে দ্ হয়।

যেমন:
জগৎ+ঈশ্বর = জগদীশ্বর
উৎ+গত = উদ্গত
মহৎ+ভয় = মহদ্ভয়
বৃহৎ+রথ = বৃহদ্রথ
জগৎ+বন্ধু = জগদ্বন্ধু


সূত্র ১৭: বর্গের প্রথম ব‍্যঞ্জন + ন্/ম্ = প্রথম ব‍্যঞ্জন > পঞ্চম ব‍্যঞ্জন/তৃতীয় ব‍্যঞ্জন


বর্গের প্রথম ব্যঞ্জনের সাথে ন্ বা ম্ যুক্ত হলে প্রথম ব‍্যঞ্জনের স্থানে পঞ্চ‌ম ব‍্যঞ্জন বা তৃতীয় ব‍্যঞ্জন হয়।(বাংলায় বর্তমানে পঞ্চম ব‍্যঞ্জন‌ই প্রচলিত।)

যেমন:
দিক্+নাগ = দিঙ্‌নাগ / দিগ্‌নাগ (দ্বিতীয়‌টি বাংলায় অপ্রচলিত)
জগৎ+নাথ = জগন্নাথ / জগদ্‌নাথ (জগদ্‌নাথ অপ্রচলিত)


সূত্র ১৮: বর্গের প্রথম ব্যঞ্জন + মাত্র/ময় = প্রথম ব‍্যঞ্জন> পঞ্চম ব‍্যঞ্জন


বর্গের প্রথম ব্যঞ্জনের সাথে মাত্র বা ময় যুক্ত হলে প্রথম ব্যঞ্জনের স্থানে পঞ্চম ব‍্যঞ্জন হয়।

যেমন:
কিঞ্চিৎ+মাত্র = কিঞ্চিন্মাত্র (ৎ মানে ত্)
বাক্+ময় = বাঙ্ময়
চিৎ+ময় = চিন্ময়
অপ্+ময় = অম্ময়


সূত্র ১৯: বর্গের ২য়, ৩য়, ৪র্থ ব‍্যঞ্জন + বর্গের ১ম,২য় ব‍্যঞ্জন / শ্,ষ্,স্ = ২য়,৩য়,৪র্থ ব‍্যঞ্জন > ১ম ব‍্যঞ্জন


বর্গের ২য়, ৩য়, ৪র্থ ব‍্যঞ্জনের সাথে বর্গের প্রথম বা দ্বিতীয় ব‍্যঞ্জন অথবা শিস ধ্বনি যুক্ত হলে ২য়,৩য়,৪র্থ ব‍্যঞ্জনের স্থানে প্রথম ব্যঞ্জন হয়।

যেমন:
বিপদ্+কাল = বিপৎকাল
ক্ষুধ্+পিপাসা = ক্ষুৎপিপাসা
ক্ষুধ্+কাতর = ক্ষুৎকাতর


সূত্র ২০: সম্ + √কৃ ধাতুজাত শব্দ = স্-এর আগম ও ম্> অনুস্বার 


সম্ উপসর্গের সাথে কৃ-ধাতুজাত শব্দ যুক্ত হলে ম্ হয় অনুস্বার এবং একটি স্-এর আগম ঘটে।

যেমন:
সম্+কার = সংস্কার
সম্+কৃত = সংস্কৃত


সূত্র ২১: পুম্ + বর্গের প্রথম/দ্বিতীয় ব‍্যঞ্জন = ম্ > অনুস্বার এবং শ্ বা স্ আগম


পুম্ শব্দের সাথে বর্গের প্রথম বা দ্বিতীয় ব‍্যঞ্জন যুক্ত হলে ম্ হয় অনুস্বার এবং শ্ বা স্-এর আগম ঘটে।

যেমন: পুম্+কোকিল = পুংস্কোকিল
পুম+চাতক = পুংশ্চাতক
পুম্+চকোর = পুংশ্চকোর
পুম্+চালিত = পুংশ্চালিত



ব‍্যঞ্জন-সন্ধির ব‍্যতিক্রম


কতকগুলি ব‍্যঞ্জন‌সন্ধি সূত্র অনুসারে হয় না। এই রূপ সন্ধিকে নিপাতনে সিদ্ধ সন্ধি বলা হয়। নিচের সন্ধিগুলি নিপাতনে সিদ্ধ।


হরি+চন্দ্র = হরিশ্চন্দ্র
পতৎ+অঞ্জলি = পতঞ্জলি
বন+পতি = বনস্পতি
তৎ+কর = তস্কর
দিব্+লোক = দ‍্যুলোক
আ+চর্য = আশ্চর্য
বৃহৎ+পতি = বৃহস্পতি

[সূচিপত্রে যেতে এখানে ক্লিক করুন।]


2 comments: